কক্সবাজারে সরকারী জমির টপ সয়েল বিক্রি ইউএনওর অভিযান : তদন্ত কমিটি গঠন

19

কক্সবাজার প্রতিনিধিঃ  কক্সবাজার ঝিলংজা বীজ বিপনন খামারের সহকারী পরিচালক সুমন চাকমার বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতি ধরলেন খোদ কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নোমান হোসেন প্রিন্স। এই সুমন চাকমা কর্তৃক ৩ লাখ টাকা ঘুষ নিয়ে সরকারী প্রায় ১ একর জমির টপ সয়েল ( কৃষি জমির উপরি ভাগ) বিক্রি করে পাশ্বাবর্তী পুকুর ভরাটের মাধ্যমে ভিটে জমি তৈরির খবর পেয়ে অভিযান চালান ইউএনও।

শনিবার বিকালে ই্উএনও এবং কক্সবাজার সদর থানার এসআই খালেদ সহ একদল পুলিশ ঝিলংজা মল্লিকপাড়ায় অভিযান চালালে টপ সয়েল বিক্রির ঘটনার সত্যতা পান।

এব্যাপারে বীজ বিপনন খামারের চট্টগ্রাম বিভাগীয় প্রধানের সাথে কথা বলে দুর্নীতিবাজ সহকারী পরিচালকের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নোমান হোসেন প্রিন্স। তবে অভিযানে খবর পেয়ে টপ সয়েল কাটা শ্রমিক ও জড়িত রুবেল মল্লিকের নের্তৃত্বে সিন্ডিকেট পালিয়ে যায়। এদের বিরুদ্ধেও আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানান ইউএনও।

অভিযোগে জানা গেছে, কক্সবাজার ঝিলংজা বীজ বিপনন খামারের সহকারী পরিচালক সুমন চাকমার বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ দীর্ঘদিনের। বীজ বিপনন খামারের মালিকানাধীন জমির ফসল, খড় থেকে শুরু করে বিভিন্ন ভাবে দূর্নীতি করে আসছিল এই সুমন চাকমা। শেষপর্যন্ত সরকারী জমির টপ সয়েল বিক্রির মতো ঘটনা ঘটান। এই সুমন চাকমা কর্তৃক ৩ লাখ টাকা ঘুষ নিয়ে সরকারী প্রায় ১ একর জমির টপ সয়েল ( কৃষি জমির উপরি ভাগ) বিক্রি করে গত কয়েকদিন জসিমের পাশ্বাবর্তী পুকুর ভরাটের মাধ্যমে ভিটে জমি তৈরি করে আসছে।

শনিবার বিকালে ই্উএনও এবং কক্সবাজার সদর থানার এসআই খালেদ সহ একদল পুলিশ ঝিলংজা মল্লিকপাড়ায় অভিযান চালালে টপ সয়েল বিক্রির ঘটনার সত্যতা পান।

কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নোমান হোসেন প্রিন্স  জানান, সরকারী জমির টপ সয়েল বিক্রি করে পাশ্ববর্তী পুকুর ভরাটের সত্যতা পেয়েছি। এব্যাপারে বীজ বিপনন খামারের চট্টগ্রাম বিভাগীয় প্রধানের সাথে কথা বলে সহকারী পরিচালকের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
তিনি জানান, অভিযানে খবর পেয়ে টপ সয়েল কাটায় জড়িত শ্রমিক ও জড়িত সিন্ডিকেট সদস্যরা পালিয়ে যায়। এদের বিরুদ্ধেও আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানান ইউএনও।

এব্যাপারে বীজ বিপনন খামারের সহকারী পরিচালক সুমন চাকমা বলেন, জমি উচু হওয়ায় কিছু মাটি সরিয়ে ফেলার জন্য বলা হয়েছিল। মাটি বিক্রির ঘটনাটি সত্য নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here