গৌরীপুরে যুবলীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে ইউএনওর বাসভবন সহ পৃথক পৃথক বোমা হামলা ! ১৪৪ ধারা জারি।

33

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলা যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার (৩০ডিসেম্বর) উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাসভবন সহ শহরের পৃথক পৃথক ৪টি স্থানে পেট্রোল বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। সংর্ঘষ এড়াতে দুপুরে শহরে ১৪৪ ধারা জারী করেছে প্রশাসন। ফলে উপজেলা যুবলীগের পুর্ব নির্ধারিত সম্মেলনটি বানচান হয়ে যায়। এর প্রতিবাদে একই সময়ে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সানাউল হকের নেতৃত্বে শহরের প্রধান সড়কে জুতা মিছিল করে স্থানীয় যুবলীগের একাংশ।

মিছিল শেষে শহরের কালিখলাস্থ উপজেলা আওয়ামী লীগ অফিসের পার্শে স্থানীয় এমপি মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহম্মেদের খোশপুত্তলিকা দাহ করে বিক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রায় ১৪ বছর পর গতকাল বৃহস্পতিবার গৌরীপুর উপজেলা যুবলীগের সম্মেলন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সম্মেলনকে কেন্দ্র করে শহরের বঙ্গবন্ধু চত্বরে আয়োজিত সম্মেলন মঞ্চটি বুধবার দিবাগত গর্ভীর রাতে দুবৃর্ত্তরা আগুন লাগিয়ে আংশিক পুড়িয়ে দেয়। এদিকে বৃস্পতিবার ভোরে শহরের কালিপুর মোড়, বালুয়াপাড়া মোড়, পাটবাজার মোড়েও পেট্রোল বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। রাতে মঞ্চটি পুড়ে দেয়ার পর সকালে আবারও মঞ্চটি মেরামত করা হয়। আয়োজকরা জানান, একটি পক্ষ  আতংক সৃষ্টি করে সম্মেলন বানচাল করতে এসব ঘটনা ঘটাতে পারে। গৌরীপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ দেলোয়ার আহমেদ জানান, শহরের বঙ্গবন্ধু চত্বরে আয়োজিত সম্মেলন মঞ্চটি বুধবার দিবাগত গর্ভীর রাতে কে বা কারা আগুন লাগিয়ে আংশিক পুড়িয়ে দেয়। এছাড়াও শহরের বিভিন্নস্থানে ৪টি ককটেল বিস্ফোরনের ঘটনা ঘটায়। সকাল সোয়া ১০টায় দিকে গৌরীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাসভবনে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে আতংক সৃষ্টি করে দুর্বৃত্তরা। তিনি আরো জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পর্যাপ্ত র‌্যাব ও পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এদিকে আইন শৃখংলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মর্জিনা আক্তার সভাস্থলসহ আশপাশ এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মর্জিনা আক্তার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট স্বাক্ষরিত আদেশে বলা হয়- “অদ্য ৩০/১১/২০১৭ ইং গৌরীপুর উপজেলা যুবলীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন শহীদ হারুণ পার্ক সংলগ্ন এলাকায় অনুষ্ঠিত হওয়ার দিন ধার্য আছে। উক্ত অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে বিবাদমান পক্ষ বিভিন্ন ভাগে বিভক্ত হওয়ায় বিরোধ প্রকাশ্য রূপ ধারণ করেছে’। ‘ইতোমধ্যে, পৌর এলাকার বিভিন্ন স্থানে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র সংঘর্ষ ও ছোট ছোট পেট্রোল বোমা নিক্ষেপের সংবাদ পাওয়া গিয়েছে। বিবাদমান পক্ষের মধ্যে বড় ধরনের সংঘর্ষের আশঙ্কা রয়েছে বলে নিম্নস্বাক্ষরকারীর নিকট অফিসার ইনচার্জ, গৌরীপুর থানা প্রতিবেদন দাখিল করায় জনসাধারণের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত কল্পে বঙ্গবন্ধু চত্বর, শহীদ হারুন পার্ক ও আশেপাশে এলাকায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণকল্পে আমি মর্জিনা আক্তার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, গৌরীপুর, ময়মনসিংহ অদ্য ৩০/১১/২০১৭ তারিখ বেলা ১২.০০ টা হতে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত ফৌজধারী কার্যবিধির ১৪৪ ধারা জারি ও বলবৎ করলাম”।

অপরদিকে ১৪৪ ধারা জারির এ আদেশের খবর পেয়ে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় ঘেরাও করে বিক্ষোভ করে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এসময় উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সানাউল হক জানান, স্থানীয় এমপি নাজিম উদ্দিন আহম্মেদ একটি পক্ষে অবস্থান নিয়ে সম্মেলন বানচাল করার জন্য পূর্বপরিকল্পিত ভাবে এসব করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here