সোনাগাজীতে যুবদলের সভাপতি-সম্পাদক সহ ২৫০ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

10

সোনাগাজী সংবাদদাতাঃ  বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে কারাদন্ড দেওয়ার প্রতিবাদে গত বৃহস্পতিবার বিকালে সোনাগাজীতে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনায় শুক্রবার রাতে সোনাগাজী মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

জেলা ছাত্রদলের সভাপতি, সম্পাদক, জেলা যুবদলের সাধারন সম্পাদক সহ ৫৪ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা ১৫০-২০০ জনকে আসামি করে সোনাগাজী মডেল থানার এসআই সেলিম জামান সরকার বাদি হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। সোনাগাজী মডেল থানার মামলা নং-০৫, তাং-০৯-০২-২০১৮ইং।

মামলার আসামিরা হচ্ছে, ফেনী সদর উপজেলা যুবদলের সভাপতি শহরতলীর খাজুরিয়া এলাকার বাসিন্দা নাছির উদ্দিন খোন্দকার, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি নঈম উল্যাহ চৌধুরী বরাত, সাধারন সম্পাদক সালাহ উদ্দিন মামুন, জেলা ছাত্রদলের আরেকাংশের সাধারন সম্পাদক এসএম কায়সার এলিন, শহরের রামপুর এলাকার ছাত্রদল নেতা রিয়াদ পাটোয়ারী,  ফেনীর ফাজিলপুরের শাহাজাহান সিরাজ, ফেনীর ফরহাদনগরের আলমগীর হোসেন, ফেনী শহরের ফলেশ্বর এলাকার ভিপি বেলাল, জেলা যুবদলের সাধারন সম্পাদক আনোয়ার হোসেন পাটোয়ারী, শহরের ডাক্তার পাড়ার আজিম, উত্তর চরচান্দিয়ার মোকসুদুর রহমান রাসেল, সোনাগাজী পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. এয়াছিন, পৌর যুবদলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম, চরচান্দিয়া ইউনিয়ন যুবদলের সাধারন সম্পাদক আবুল কাসেম, উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের আজিজ, সাখাওয়াত হোসেন,

সোনাগাজী উপজেলা যুবদলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন, ছাত্রদল নেতা মেজবাহ উদ্দিন পিয়াস, ইসমাইল হোসেন, উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের শামীম, মাসুম, সোহাগ, সাদ্দাম হোসেন, ইমাম হোসেন মিসকিন, হুমায়ুন কবির মাসুদ, সোনাগাজী পৌর যুবদলের সাধারন সম্পাদক মোস্তফা ওয়াদুদ দুলাল, উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের এমদাদ উল্যাহ, আবদুল মান্নান নয়ন, মো. এয়াছিন, সোনাগাজী উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর ছিদ্দিক মারুফ, উপজেলা যুবদলের সভাপতি জসিম উদ্দিন লন্ডনী, পৌর ছাত্রদলের সভাপতি নিজাম উদ্দিন, চরদরবেশের নুর ইসলাম শিমুল, উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের নজরুল ইসলাম, মধ্যম চরচান্দিয়া গ্রামের আবু মুসা, উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের মোশাররফ, সোনাগাজী সদর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি বেলায়েত হোসেন, চরদরবেশের জসিম উদ্দিন, চরচান্দিয়ার আবুল কালাম, চরখোয়াজের মাসুদ, উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক হাসান মাহমুদ, নবাবপুরের মোজাম্মেল হোসেন আরিফ, উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের রফিকুল ইসলাম, চরসোনাপুরের শহীদুল ইসলাম বাবলু, নবাবপুরের ফখরুল ইসলাম, বগাদানার ফখরুল ইসলাম, উত্তর মঙ্গলকান্দি গ্রামের আমিনুল ইসলাম, নবাব মহসিন আরিফ, মতিগঞ্জের মোস্তফা হোসেন রুমেন, নূরনবী হৃদয়, আহম্মদপুর গ্রামের মাঈন উদ্দিন রিমন, সাহাব উদ্দিন, বগাদানার মাসুদ রানা এবং  উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম-আহবায়ক রাশেদ মেম্বার।

পুলিশ মামলায় উল্লেখ করেন বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার মামলার রায়কে কেন্দ্র করে সোনাগাজী পৌর শহরে বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা মিছিল বের করে জনৈক ইউছুফের পান দোকান ভাঙচুর সহ ককটেল বিস্ফোরন ঘটিয়ে জনমনে ভীতি তৈরীর চেষ্টা করে। এসময় পুলিশ তাদের বাঁধা দিলে ধাওয়া- পাল্টা ধাওয়াসহ তারা পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। হামলায় সোনাগাজী মডেল থানার এসআই তাজুল ইসলাম, কনস্টেবল আবুল হাসেম, মোহাম্মদ উল্যাহ ও নুরুল আমিন আহত হন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৩০ রাউন্ড টিয়ারসেল ও শর্টগানের গুলি ছোঁড়ে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ৩টি অবিস্ফোরতি ককটেল উদ্ধার করে। এসময় পৌর কাউন্সিলর মো. ইয়াছিন ও যুবদল নেতা মাসুদুর রহমান রাসেল হামিদীকে গ্রেপ্তার করে।
আহত পুলিশ সদস্যদেরকে সোনাগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

সোনাগাজী মডেল থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। যে কোন ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি মোকাবেলাসহ আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ তৎপর রয়েছে।
এদিকে উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক খুরশিদ আলম ভূঞা বিএনপি ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অভিযোগ করেন, অভিযানের নামে বিপুল সংখ্যক পুলিশ বৃহস্পতিবার দুপুরে তার বাড়িতে প্রবেশ করে তাকে না পেয়ে তার ঘরের আসবাবপত্র ভাঙচুর করেছেন। তিনি আরো দাবি করেন ছাত্র-যুবদলের শান্তিপূর্ণ মিছিলে বিনা উস্কানীতে হামলা করেছে।

এ ব্যাপারে জেলা ছাত্রদলের সভাপতি নঈম উল্যাহ চৌধুরী বরাত জানান, তিনি তার প্রিয় নেত্রীর বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রহসনমূলক মামলায় সাজা দেয়ার প্রতিবাদে তিনি ঘটনার সময় ফেনী শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করেছেন। কিন্তু একই সময়ের ঘটনা দেখিয়ে তাকে সহ বিএনপি ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here