আর্সেনিকোসিস : স্পিরুলিনা একটি সম্ভাবনা

আর্সেনিক এর ভয়াবহতা এবং এর প্রতিকার নিয়ে লিখেছেন কনসালটেন্ট ফিজিসিয়ান ইউনানী মেডিসিন এবং আকুপাংকচারিস্ট ডা মোহাম্মদ ফ. এ. হাসান

171

ডা  মোহাম্মদ ফ. এ. হাসানঃ   স্পিরুলিনা হচ্ছে এক প্রজাতির এক কোষী নীল সবুজ শৈবাল যা খালি চোখে দেখা যায় না। পৃথিবীতে অনেক প্রজাতির শৈবাল রয়েছে, স্পিরুলিনা হচ্ছে তাদের মধ্যে অন্যতম। যা নাসা দ্বারা মহাশূন্য যাত্রিদের জন্য খাবার হিসেবে সফল ব্যবহারের পর থেকে সারা বিশ্বে আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে।

ডা মোহাম্মদ ফ. এ. হাসান

আমরা যদি স্পিরুলিনার পুষ্টি গুলোর দিকে লক্ষ্য করি , তাহলে চমকে যাওয়াটাই স্বাবাভিক।  আমরা সবসময় জেনে আসছি , দুধ হচ্ছে শিশুদের জন্য আদর্শ খাবার।  আমরা কি কখনও নিজেদেরকে প্রশ্ন করেছি, প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষের জন্য আদর্শ খাবার কোনটি হতে পারে। ১৯৭৪ সালে, বিশ্ব খাদ্য সম্মেলনে জাতিসংঘ স্পিরুলিনাকে “মানব জাতির জন্য সর্বোত্তম আদর্শ খাবার” হিসেবে আখ্যায়িত করেছে।

বাংলাদেশে একটি ভয়াবহ স্বাস্থ সমস্যা হচ্ছে আর্সেনিকোসিস। যার কারণে প্রতি বছর অনেক মানুষ মারা যায়। আর্সেনিকোসিস থেকে মুক্তির উপায় হচ্ছে , আর্সেনিক মুক্ত পানি এবং নিয়মিত স্পিরুলিনা সেবন করা। স্পিরুলিনা হচ্ছে একটি অন্যতম উপায় আর্সেনিকের বিষক্রিয়া থেকে মুক্তি পেতে , যার স্বপক্ষে বাংলাদেশের গবেষকদের সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশের গবেষকদের গবেষণার সমর্থন পাওয়া যায়।  তাহলে আসুন দেখি , স্পিরুলিনা কিভাবে আর্সেনিকোসিসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ব্যবস্থা সৃষ্টি করে থাকে।

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে যে , আর্সেনিকে আক্রান্ত প্রাণীদের লিভার , কিডনি , প্লীহা , হৃদপিন্ড , পাকস্থলী , ক্ষুদ্রান্ত এবং মাংস পেশীতে আর্সেনিক পাওয়া যায়। এটি সুস্পষ্ট ভাবে পরিলক্ষিত হয় , যে সব আর্সেনিকে আক্রান্ত প্রাণীদের স্পিরুলিনা দেওয়া হয়েছিল , ৪০ দিন পর থেকে ধীরে ধীরে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে আর্সেনিকের মাত্রা কমতে এবং ক্ষতিগ্রস্থ কোষ গুলো পুনরুজ্জীবিত হতে শুরু করে।

স্পিরুলিনা হচ্ছে উচ্চ মাত্রায় পুষ্টি সমৃদ্ধ।  যাতে রয়েছে প্রোটিন ; ফাইকোসাইয়ানিন ; গামা লিনোলেনিক অ্যাসিড ; ভিটামিন বি ১ ; বি ২ ; বি ৩; বি ৬; বি ১২ এবং প্রয়োজনীয় ফ্যাটি অ্যাসিড, আরো অনেক যা আমাদের কল্পনা থেকেও অনেক বেশি।।  এই সমস্ত উপাদান গুলুই সাধারণ স্বাস্থ রক্ষায় অতি প্রয়োজনীয়। এই উপাদান গুলু শরীরের এনজাইম এবং এন্টি বডি সৃষ্টিতে সহায়ক এবং অন্যতম ভূমিকা রাখে। স্পিরুলিনার সমস্থ উপাদান গুলুকে পর্যালোচনা করলে দেখা যায় যে , প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহের পাশাপাশি , স্পিরুলিনাতে বিদ্ধমান কিছু উপাদান রয়েছে , যা প্রাকৃতিক এন্টিবায়োটিক হিসেবে কাজ করে এবং লিভার কে সতেজ করার মাধ্যমে শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দেয়।

আর্সেনিকোসিস থেকে পরিত্রাণে স্পিরুলিনা অন্যতম ভূমিকা রাখে , যা বিভিন্ন গবেষণায় সুস্পষ্ট ভাবে পরিলক্ষিত হয়।

আসুন,আর্সেনিক মুক্ত পানি এবং নিয়মিত স্পিরুলিনা সেবন করি।

বিডিসংবাদ/এএইচএস