কারিগরী দক্ষতা বৃদ্ধিতে প্রশিক্ষণ প্রদানে আগ্রহ অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশনারের

অবকাঠামো নির্মাণে দক্ষ জনবল তৈরি ও নির্মাণশিল্পের সঙ্গে জড়িতদের প্রশিক্ষণ প্রদানে বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশনার (ভারপ্রাপ্ত) নরদিয়া সিম্পসন।
তিনি আজ সোমবার সচিবালয়ে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী র, আ, ম, উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সঙ্গে এক সৌজন্য সাক্ষাতকালে এ আগ্রহের কথা জানান।
নরদিয়া সিম্পসন বলেন, ভৌগোলিকভাবে বাংলাদেশকে বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে অবকাঠামো নির্মাণ করতে হয়। এর সাথে পরিবেশ সুরক্ষা ও ভূমির যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করার বিষয় সামনে রেখে কাজ করতে হয়। ফলে টেকসই অবকাঠামো উন্নয়ন ও সবার জন্য আবাসন নিশ্চিত করা যথেষ্ট চ্যালেঞ্জিং। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় অস্ট্রেলিয়ার সরকার, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও ট্রেনিং ইনস্টিটিউটের কাজ করার সুযোগ রয়েছে।
তিনি প্রয়োজনীয় দক্ষতা উন্নয়নের জন্য সংশ্লিষ্টদের সংক্ষিপ্ত মেয়াদে প্রশিক্ষণ প্রদানের বিষয়ে আগ্রহ ব্যক্ত করেন।
এছাড়া পরিবেশ সুরক্ষার জন্য তিনি ভূগর্ভস্থ পানির পরিবর্তে ভূ-পৃষ্ঠস্থ পানির ব্যবহার বাড়ানোর ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের অনুরোধ জানান।
এদিকে, মন্ত্রণালয়ে গৃহায়ন মন্ত্রীর সাথে ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্যের নেতৃত্বে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে নাগরিক প্লাটফর্মের প্রতিনিধিদল সাক্ষাত করেন।
সাক্ষাতকালে তারা দেশের আবাসন খাতে বিদ্যমান সমস্যা, সমস্যা উত্তরণে বিভিন্ন পন্থা সম্পর্কিত গবেষণালব্ধ সুপারিশ ও পরার্মশসমূহ সম্পর্কে আলোচনা করেন।
আলোচনাকালে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে প্ল্যানারদের অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়ে উল্লেখ করলে মন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষসহ সকল উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের জনবল কাঠামো এবং সকল উন্নয়ন প্রকল্পে প্ল্যানার ও পরিবেশবিদ অন্তর্ভুক্ত করার জন্য ইতোমধ্যে মৌখিক নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।
আলাপকালে মন্ত্রী দেশের নগরাঞ্চলের পাশাপাশি গ্রামাঞ্চলের পরিকল্পিত উন্নয়ন সম্পর্কে তার গৃহীত পদক্ষেপ ও ভবিষ্যত পরিকল্পনা জানান। এক্ষেত্রে সিপিডি ও এসডিজি বাস্তবায়নে নাগরিক প্লাটফর্মের সুপারিশ ও প্রস্তাবসমূহ তিনি সক্রিয় বিবেচনার আশ্বাস দেন।
মন্ত্রী বলেন, গ্রামাঞ্চলের উন্নয়নকর্মকান্ড শৃঙ্খলায় আনতে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণের অনুরোধ জানিয়ে ইতোমধ্যে একটি পত্র প্রেরণ করা হয়েছে।
এক্ষেত্রে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়, কৃষি মন্ত্রণালয় এবং পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রণালয় মিলে সমন্বিতভাবে কাজ করতে পারে বলে মন্ত্রী উল্লেখ করেন।
সাক্ষাতকালে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী ওয়াছি উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।

বিডিসংবাদ/এএইচএস

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here