গাজা যুদ্ধ বন্ধের প্রস্তাব অনুমোদনে বিশ্ব যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থনের অপেক্ষায়

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ বৃহস্পতিবার আবারও ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যে যুদ্ধ বন্ধের একটি প্রস্তাব পাস করার চেষ্টা করবে। ওয়াশিংটনের ভেটোর কারণে প্রস্তাব পাসের আগের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হওয়ার পর জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ বৃহস্পতিবার আবারও একটি প্রস্তাব পাস করার চেষ্টায় যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থনের অপেক্ষায় রয়েছে।
ম্যানহাটনে জাতিসংঘের সদর দফতরে কূটনৈতিক টানাপোড়েনের কারণে গাজার অবনতিশীল পরিস্থিতি এবং ক্রমবর্ধমান মৃতের সংখ্যার পটভূমিতে আনা যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবে নিরাপত্তা পরিষদের ভোটাভুটি বুধবার আবার স্থগিত করা হয়।
এএফপি’র হাতে আসা খসড়া সংস্করণ অনুসারে, সংযুক্ত আরব আমিরাত এই সংঘাতের অবসানে একটি খসড়া প্রস্তাবের পৃষ্ঠপোষকতা করছে। নিরাপদ আপস সমাধানে পৌঁছার জন্য যা ইতোমধ্যেই আরো নমনীয় করা হয়েছে।
এতে ‘নিরাপদ এবং নিরবচ্ছিন্ন মানবিক সহায়তা পৌঁছানোর অনুমতি দেওয়ার জন্য জরুরি যুদ্ধ স্থগিত করার এবং যুদ্ধ বন্ধের দিকে টেকসই পদক্ষেপের আহ্বান জানানো হয়েছে।’
সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রদূত লানা জাকি নুসিবেহ বলেছেন,‘যুদ্ধ বন্ধে সরাসরি কার্যকর প্রভাব পড়ে এমন একটি সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর জন্য দেশগুলোর কূটনীতিকরা সর্বোচ্চ স্তরে চেষ্টা চালাচ্ছেন।’
১৫-সদস্যের কাউন্সিলের সদস্যরা প্রস্তাবের সাধারণ ভিত্তি খুঁজে পেতে কয়েকদিন ধরে লড়াই করছেন। এই ভোট সোমবার থেকে বেশ কয়েকবার পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।
ইসরায়েলের মিত্র নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ভেটো দিয়ে ‘যুদ্ধবিরতি’ শব্দটির বিরোধিতা করেছে এবং ওয়াশিংটন যুদ্ধ শুরুর পর থেকে ইসরায়েল বিরোধী প্রস্তাব গুলোকে ব্যর্থ করতে তাদের ভেটো ক্ষমতা ব্যবহার করেছে।
একটি কূটনৈতিক সূত্র জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের অনুরোধে সর্বশেষ বিলম্ব হয়েছে।
ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বুধবার বলেছেন, হামাসকে ‘নির্মূল’ না করা পর্যন্ত গাজায় কোনো যুদ্ধবিরতি হবে না।
ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইসিস গ্রুপের বিশ্লেষক রিচার্ড গোয়ান বলেন, ‘নিউইয়র্কের (জাতিসংঘ সদর দপ্তরে) সবাই এখনও হোয়াইট হাউসের জন্য অপেক্ষা করছে। একটি দৃঢ় ধারণা রয়েছে যে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনই এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন।’
গোয়ান বলেছেন, জাতিসংঘে ওয়াশিংটনের রাষ্ট্রদূত লিন্ডা থমাস-গ্রিনফিল্ড ‘চুক্তির জন্য মার্কিন ব্যবস্থার মধ্যে কঠোর অবস্থান নিয়েছেন।’
‘তবে ইসরায়েলিরা যদি প্রস্তাবের বিরোধিতা করতে থাকে, বাইডেন এখনও এটিকে ব্লক করার সিদ্ধান্ত নিতে পারেন।’
যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন নিরাপত্তা পরিষদে ওয়াশিংটনের পরবর্তী পদক্ষেপের বিষয়ে মতামত প্রকাশ করবেন না। তিনি বুধবার সাংবাদিকদের বলেছেন,যুক্তরাষ্ট্র ‘গঠনমূলকভাবে’ কিছু সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছে।
ওয়াশিংটন প্রস্তাবটিতে মানবিক সহায়তা সরবরাহ প্রচেষ্টা অগ্রসর করতে চায়, তবে যুদ্ধবিরতি নয়।
জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক বলেছেন, মহাসচিবের নিজের অবস্থান অপরিবর্তিত। তিনি একটি মানবিক যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানাচ্ছেন।’

বিডিসংবাদ/এএইচএস