চট্টগ্রামে বিএনপির হরতালে সাড়া মেলেনি, আওয়ামী লীগের সরব অবস্থান

বিডিসংবাদ অনলাইন ডেস্কঃ

চট্টগ্রামে বিএনপি’র ডাকা হরতালে সাড়া মেলেনি। অন্যান্য দিনের মতোই সবকিছুই স্বাভাবিক ছিল। হরতাল ডাকা দলের নেতাকর্মীদের দেখা যায়নি সারাদিনেও, পিকেটিং ছিল না কোথাও। অন্যদিকে, জনগণের জানমাল রক্ষায় নগর আওয়ামী লীগের পাশাপাশি এবার প্রতিটি ওয়ার্ডে শান্তি সমাবেশ করে রাজপথে অবস্থান অব্যাহত রেখেছেন দলের নেতাকর্মীরা।
মহানগর আওয়ামী লীগ দারুল ফজল মার্কেট চত্বরে শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশ করেছে। মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সাংগঠনিক সম্পাদক শফিক আদনান, দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ হাসান মাহমুদ শমসের, আইন সম্পাদক এড. শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক চন্দন ধর, বন ও পরিবেশ সম্পাদক মশিউর রহমান চৌধুরী, জামালখান ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের আবুল হাশেম বাবুল, ফিরিঙ্গিবাজার ওয়ার্ডের স্বপন কুমার মজুমদার, আলকরণ ওয়ার্ডের রুহুল আমিন তপন, এনায়েত বাজার ওয়ার্ডের সলিমুল্লাহ বাচ্চু, আন্দরকিল্লা ওয়ার্ডের আশীষ ভট্টাচার্য্য, পাথরঘাটা ওয়ার্ডের ফজলে আজিজ বাবুল, পূর্ব মাদারবাড়ি ওয়ার্ডের মুজিবুল হক পেয়ারু, মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীর প্রমুখ।
প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আলহাজ শফিকুল ইসলাম ফারুকের সঞ্চালনায় সমাবেশে মিছিল সহকারে যোগদান করেন আন্দরকিল্লা, ফিরিঙ্গিবাজার, এনায়েতবাজার, জামালখান, আলকরণ, বাগমনিরাম ওয়ার্ড আওয়ামী লীগসহ যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এছাড়া নগরীর গুরুত্বপূর্ণ আরো ৫টি স্থানে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে মাহতাব চৌধুরী বলেন, জনগণের কাছে প্রত্যাখাত বিএনপি ও তার সহচররা এখন বঙ্গোপসাগরের বুকে একটি ডুবন্ত জাহাজ। এই বিএনপির মির্জা ফখরুল, আব্বাসরা অহরহ পাগলের প্রলাপ বকে এখন কারাগারে নির্বাচন দ- ভোগ করছেন। খালেদা জিয়া দুর্নীতির দায়ে শাস্তিপ্রাপ্ত একজন আসামি। তারেক জিয়া একজন দ-িত অপরাধী এবং তিনি রাজনীতি করবেন না বলে মুচলেকা দিয়ে লন্ডনে বসে নানামুখী ষড়যন্ত্র করছেন এবং সেখানে বেকার তারেক জিয়া বিলাসবহুল জীবনযাপন করছেন। এর অর্থের উৎস কোথা থেকে আসে সেটাও দেশবাসী জানেন। তিনি বিএনপি’র অযৌক্তিক হরতাল প্রত্যাখ্যান করে জীবনযাত্রা স্বাভাবিক ও শান্তিপূর্ণ রাখার জন্য জনগণকে অভিনন্দন জানান এবং ধৈর্য্যরে সাথে পরিস্থিতি মোকাবেলা করার জন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।
আন্দরকিল্লা ও চাঁন্দগাও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে পৃথক শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন সিটি মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী। চান্দগাঁওয়ে ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. এসরারুল হকের সভাপতিত্বে সামবেশে মহানগর যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি নুরুল আনোয়ার, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রুক্সী, মো. ইলিয়াছ উদ্দীন, মঈন উদ্দীন ফরহাদ, মেসবাহ উদ্দীন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। সঞ্চালনা করেন যুবলীগ সংগঠক মাহফুজুর রহমান মানিক।
নগর আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক ও কাউন্সিলর জহর লাল হাজারীর সভাপতিত্বে আন্দরকিল্লা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে লালদিঘি পাড়ে শান্তি সমাবেশে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন চসিক সংরক্ষিত কাউন্সিলর রুমকি সেনগুপ্ত, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রতন আচার্য, নগর যুবলীগ নেতা নেছার আহাম্মদ, প্রতাপ দাস, বলরাম চক্রবর্তী, কাজী হেলালুদ্দিন,শামীম আজাদ, রুবেল, লিটন দাস প্রমুখ।
এ দু’টি সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, মূলত জনবিচ্ছিন্ন হওয়ায় বিএনপির সব পরিকল্পনাই মাঠে মারা যাচ্ছে। বিএনপি নেতাদের বলতে চাই, এভাবে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে পিছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতার মসনদে বসতে পারবেন না। সরকারের বিরোধিতা ছেড়ে নির্বাচনে এসে নিজেদের অস্তিত্ব বাঁচান। নির্বাচনে আপনাদের জয়ী হওয়ার কোনো সম্ভাবনাই নাই। কারণ জ্বালাও পোড়াওর কারণে মানুষ আপনাদের প্রত্যাখান করবে। অন্তত নির্বাচনে আসলে নিবন্ধনটা বাঁচবে আপনাদের। তিনি বলেন, বিদেশিদের কথায় নাচতে নাচতে বিএনপি এখন খোঁড়ার দলে পরিণত হয়েছে। এজন্য তারা সমাবেশ ডাকলেও ব্যর্থ হচ্ছে, হরতাল ডাকলেও ব্যর্থ হচ্ছে, অবরোধ ডাকলেও ব্যর্থ হচ্ছে।
চট্টগ্রাম-১১ আসনের সংসদ সদস্য এমএ লতিফের উদ্যোগে সকালে নগরীর আগ্রাবাদে শান্তি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন নগর আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মাহবুবুল হক মিয়া, ২৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. শেখ জাফরুল হায়দার চৌধুরী সবুজ, ২৭ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি আজিজ মোল্লা, ২৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেলিম রেজা, ৩০ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মুজিবুল হক পেয়ারু, সদস্য মোহাম্মদ আদনানুল ইসলাম, লবণ শ্রমিক লীগ সভাপতি আবদুল মতিন মাস্টার, চট্টগ্রাম বন্দর শ্রমিক কর্মচারী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো. ইমাম হোসেন প্রমুখ।
সমাবেশে সংসদ সদস্য এমএ লতিফ বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে, তখনি বিএনপি-জামাত চক্র অবরোধের নামে নিরীহ মানুষ পুড়িয়ে দেশকে নৈরাজ্যের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে এই চক্রের ধারাবাহিক ষড়যন্ত্র শেখ হাসিনার সরকারের উন্নয়ন ও গণতন্ত্র নস্যাৎ করতে পারবে না। তিনি বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধুর আর্দশের সৈনিকরা তাদের এই ষড়যন্ত্র রাজপথে রুখে দিবো। চলমান নৈরাজ্য রুখে দিতে প্রতিটি পয়েন্টে আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের জনগণের জানমাল রক্ষায় অতন্ত্র প্রহরীর ভূমিকা পালন করার আহবান জানান তিনি।

শাহ আমানত সেতুর প্রবেশমুখের শান্তি সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন নগর আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক ও ১৭ নং পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ শহিদুল আলম। এতে বক্তব্য রাখেন ১৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আহমেদ ইলিয়াছ, থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক ছিদ্দিক আলম, ১৯ নং ওয়ার্ড সভাপতি নুরুল আজিম নুরু, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ইফতেখার আলম, ৩৫ নং ওয়ার্ড এর সাধারণ সম্পাদক ফয়েজুল্লাহ বাহাদুর, ১৭ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ যুগ্ন-আহবায়ক আকবর আলী আকাশ, পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আনোয়ার মেম্বার, নগর যুবলীগের সাবেক নেতা সাহেদুল ইসলাম সাহেদ, আবদুল হাকিম, ইসমাইল হোসেন, বখতেয়ার ফারুক, আফজল হোসেন, গৌতম নাগ ইয়াসিন টিপু, মুন্না খান প্রমুখ। সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল বিভিন্ন এলাকা প্রদক্ষিণ করে।
কাপ্তাই রাস্তার মাথা চত্বরে ৫নং মোহরা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে শান্তি সমাবেশ ও অবস্থান কর্মসূচি ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জসিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য এসএম আলী আকবরের সঞ্চালনায় সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন নগর আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও সাবেক কাউন্সিলর আবু তাহের। সভায় বক্তব্য রাখেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা আনোয়ার মির্জা, ইমতিয়াজ উদ্দিন চৌধুরী, মো. ফারুক, শিল্পপতি সৈয়দ সিরাজুল ইসলাম কমু, জসিম উদ্দিন, শহিদুল ইসলাম দুলাল, সৈয়দ মুজিবুল হক, মহানগর যুবলীগের জনশক্তি ও কর্মসংস্থান বিষয়ক সম্পাদক নঈম উদ্দিন খান, ওমর কৈয়ুম তৈয়ব, শফিকুর রহমান সৌরভ, সাইফুদ্দিন, মো. জাহেদ প্রমুখ।

বিডিসংবাদ/এএইচএস