ঝিনাইদহে এবার চেয়ারম্যান কবির হোসেনকে হত্যার হুমকি

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ ঝিনাইদহ সদর উপজেলার নলডাঙ্গা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কবির হোসেনকে হত্যার হুমকি দিয়েছে ওই ইউনিয়নেরই সাবেক চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম রবি। এ ঘটনায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে ঝিনাইদহ পুলিশ সুপারসহ বিভিন্ন দপ্তরে চিঠি ও অভিযোগ পাঠিয়েছেন কবির হোসেন। কবির হোসেনের লিখিত অভিযোগ থেকে জানা যায়, ওই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম রবি ও তার বাহিনী এলাকার নিরীহ সাধারন মানুষের উপর নির্যাতন ও জুলুম চালিয়ে আসছে। বিশেষ করে এলাকার সংখ্যালঘু পরিবারের উপর চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে। তবুও এদের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেনা। ফলে দিন দিন এরা আরো বেশি বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

রবি ও তার বাহিনী’র নামে ঝিনাইদহ সদর থানাসহ বিভিন্ন থানা ও আদালতে চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, চাদাবাজি, হত্যাসহ একাধিক মামলা রয়েছে। কিছু মামলায় আদালত থেকে জামিনে মুক্ত হয়ে এসে নতুন করে নানা রকম অপরাধমুলক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়েছে। সন্ধার পর পরই তারা অস্ত্রের মহড়া দিয়ে শুরু করে চাঁদাবাজিসহ নানা রকম অপরাধমুলক কর্মকান্ড। বর্তমান চেয়ারম্যান কবির হোসেন কে হত্যার জন্য নানা রকম ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। এমনকি প্রতিনিয়তই তাকে রবি ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী’র লোকেরা হত্যার হুমকি দিচ্ছে। এর ফলে চেয়াম্যানের সার্বিক কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। পাশাপাশি চরম নিরাপত্তাহীনতায় দিন কাটাচ্ছে। এদের কারণে এলাকায় চুরি ছিনতাই দিন দিন বেড়ে চলেছে। এদের অত্যাচারে এলাকার সংখ্যালঘু পরিবারসহ অনেকেই বাড়ি-ঘর ছেড়ে অন্যত্রে চলে গেছে।

রবির অন্যতম সহযোগিরা হলেন নলডাঙ্গা ইউনিয়নের চেউনিয়া গ্রামের গুরুপদ’র ছেলে সনজিদ কুমার, রবিনের ছেলে খোকন, আব্দুল জলিলের ছেলে ওহাব, হাতেম আলির ছেলে জাহাঙ্গির, গড়িয়ালা গ্রামের মাজো, ঝন্টু, যাত্রাপুর গ্রামের আলম ডাকাত, তেতুলবাড়িয়া গ্রামের ময়নদ্দীন বিশ্বাস, আনোয়ার, খেদাপাড়া গ্রামের মকবুল এবং রবির শ্যালক ঝিনাইদহ শহরের ব্যাংক ডাকাতি মামলার আসামি ব্যাপারিপাড়ার ইমরান হোসেন।

ওই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান রুহুল বিশ্বাস হত্যার অন্যতম আসামী রবি। রুহুল বিশ্বাসের সাথে নির্বাচনে হেরে গিয়ে তাকে হত্যা করে রবি। পরবর্তীতে উপ-নির্বাচনের মাধ্যমে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়। বর্তমান চেয়ারম্যান কবির হোসেনের সাথে নির্বাচনে হেরে গিয়ে একই পথ অবলম্বন করবে বলে হুমকি দিচ্ছে। রবি বিরুদ্ধে ঝিনাইদহ সদর থানায় ১২ টি মামলা ও ১ টি জিডি রয়েছে। চেয়ারম্যান কবির হোসেন জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।