টাঙ্গাইলে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় ঢাকায় দু’জন গ্রেফতার

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার বাঘিল ইউনিয়নে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের গুলিতে ৩ জন আহত হওয়ার ঘটনার আসামি ফারুক হোসেন ও কামরুলকে রাজধানীর উত্তরা থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।
তাদের মধ্যে ফারুক গুলির ঘটনায় দায়ের করা মামলার প্রধান আসামি ও কামরুল তার সহযোগী।
র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন জানান, রোববার রাতে ঢাকার উত্তরা ও কাফরুলে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এ নিয়ে মোট চারজন গ্রেফতার হয়েছে।
মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে কমান্ডার মঈন বলেন, ‘ফারুক ও কামরুল প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গোলাগুলির ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে’।
মামলার এজাহার ও প্রতক্ষদর্শীদের মাধ্যমে জানা যায়, গত ২৪ ডিসেম্বর ভিকটিম রোকন, এমদাদ ও সিয়ামসহ ৪ থেকে ৫ জন নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা শেষে বাড়ী ফেরার পথে আনুমানিক রাত ১১ টায় টাঙ্গাইলের কাঠুয়া যোগনী এলাকায় পৌঁছলে গ্রেফতারকৃত ফারুক হোসেন ও কামরুলের নেতৃত্বে বেশকয়েকজন সন্ত্রাসী পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী তাদের লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি করে এবং দেশীয় অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে গুরুতর জখম করে। এ সময় রোকন, এমদাদ ও সিয়ামের মাথা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুলিবিদ্ধ হয়। তাদের চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এলে দুষ্কৃতকারিরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে টাঙ্গাইলের একটি হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।
ফারুক ওই ঘটনার পরপরই পালিয়ে ঢাকায় এসে উত্তরায় আত্মগোপনে ছিলেন।
এ ঘটনায় ৬ জন আসামির নামউল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো ২০ থেকে ২৫ জনকে আসামি করে টাঙ্গাইল সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়।
বিডিসংবাদ/এএইচএস