তিস্তা নিয়ে কোন কথা হয়নি : এরশাদ

লালমনিরহাট প্রতিনিধি:৫ দিনের সফর শেষে দেশে ফিরেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদ। গত ২২ এপ্রিল এই স্থলবন্দর দিয়ে তার পৈতৃক ভিটা ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের কুচবিহার জেলার দিনহাটার বাসস্টান্ড এলাকায় যান।

বৃহস্পতিবার দুপুরে লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে দেশে ফিরে হাতীবান্ধা উপজেলার তিস্তা ব্যারাজ অবসরে বিশ্রাম নেয়ার পর ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেন।

মমতা এরশাদের মধ্যে কোন বৈঠক হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে জাপা’র মহাসচিব বলেন, এটি এরশাদ সাহেবের পারিবারিক সফর। পারিবারিক কয়েকটি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন মাত্র। রাষ্ট্রিয় অনুষ্ঠান বা তিস্তার পানি চুক্তি নিয়ে কোন বৈঠক হয়নি।

সফর শেষে লালমনিরহাটের তিস্তা ব্যারাজ অবসরে এরশাদের সফরসঙ্গী দলের মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের বলেন, তিস্তার পানি চুক্তি নিয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে। দুই দেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের মধ্যে এ নিয়ে একাধিকবার বৈঠক হয়েছে বা হবে। এ নিয়ে আমাদের কোন মন্তব্য নেই। তবে আমরা আশাবাদি শীঘ্রই তিস্তার পানি চুক্তি হবে।

অপর এক প্রশ্নের উত্তরে রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, জাতীয় পার্টি অগনতান্ত্রিক তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা সমর্থন দেয় নি আগামীতেও দিবে না। তিনি বলেন, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদের নেতৃত্বে ৩৪ টি দল নিয়ে জোট গঠনের আলোচনা চলছে। এ জোট আগামী নির্বাচনে ৩০০ আসনে প্রার্থী দিবেন।

উল্লেখ্য, এরশাদ তিস্তা অবসরে আসার পথে তার আমলে নির্মিত দেশের সর্ববৃহৎ সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজের উদ্বোধনী ফলক অবলোকন দৃষ্টিতে তাকান।

সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদ ১৯৪৬ সালে দিনহাটায় ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করে রংপুর কলেজে পড়তে আসেন। ভারত ভাগের পর সেখাইেন স্থায়ী হয় তার পরিবার।

তার সফরসঙ্গী হিসেবে ছিলেন, ছেলে এরিক এরশাদ, দলের মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনিল শুভ রায়, ব্যক্তিগত সচিব মোহাম্মদ জসিম ও সহকারী মোহাম্মদ ওহাব।