নরসিংদীতে নির্যাতনের শিকার অসহায় বিধবা, মৃত্যুর সাথে লড়াই করছে

নরসিংদী প্রতিনিধিঃ নরসিংদীর বেলাব  উপজেলার সলমা গ্রামের মৃত প্রদীপ চন্দ  দাসের অসহায় বিধবা স্ত্রী ছন্দা রানী দাস(৪৮) ভূমি দস্যুদের নির্যাতনের শিকার হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করার এক চাঞ্চল্যকর সংবাদ পাওয়া গেছে ।

নির্যাতিতা অসহায় বিধবা ছন্দা রানী দাস তার বড় মেয়ের স্বামীর বাড়ী টংগী যাওয়ার উদ্দেশ্যে  বাড়ী থেকে বের হয়ে একই উপজেলার পোড়াদিয়া থেকে রিক্রাযোগে বেলাব  বাসষ্ট্যান্ড নিকট পৌছালে পূর্ব পরিকল্পিত উপায়ে পোড়াদিয়া গ্রামের  জয়নাল আবেদিন এর পুত্র ভুমিদস্যু কামরুল ইসলাম বিল্লাল অস্ত্রের মুখে তার ৫/৭ জন সহযোগিদের নিয়ে রিক্রা থেকে জোরপূর্বক অসহায় বিধবা ছন্দা রানী দাসকে একটি সাদা রং এর মাইক্রোবাসে উঠিয়ে অপহরন করে নিয়ে যায়। ভুমিদস্যু কামরুল ইসলাম বিল্লাল’র নেতৃত্বাধীন সহযোগিরা মাইক্রোবাসের অভ্যান্তরে থাকা বিধবা ছন্দা রানী দাসকে বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতিসহ প্রাননাশের হুমকি দিয়ে একশত টাকা মূল্যের চারটি সাদা ষ্ট্যাম্পে জোরপূর্বক স্বাক্ষর আদায় করে নেয়। ভুমিদস্যু সন্ত্রাসী কামরুল ইসলাম বিল্লাল’র নেতৃত্বাধীন সন্ত্রাসী বাহিনীর সদস্যরা গাড়ীর ভেতরে অসহায় বিধবা ছন্দা রানী দাসকে হাত, পা, মুখ বেধে নির্মমভাবে পাশবিক অত্যাচার চালিয়ে সঙ্গাহীন অবস্থায় অজ্ঞাত স্থানে ফেলে রেখ পালিয়ে যায় ।

৪মে শুক্রবার সকাল ১১টায় ঘটনাস্থল থেকে বিধবা ছন্দা রানী দাসকে অপহরন করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার অজ্ঞাত এক স্থানে প্রানে মারা গেছে ভেবে অপহরনকারী চক্র রাস্তার পাশে ফেলে রেখে চলে যায়। এসময় রাস্তায় চলাচলকারী জনৈক এক সিএনজি চালক বিধবা ছন্দা রানী দাসকে মুমূর্ষ্য অবস্থায় স্থানীয় নাজ মেডিকেল সেন্টারে নিয়ে যায়। ভিকটিম বিধবা ছন্দা রানী দাস’র অবস্থা বেগতিক দেখে  দ্রুত তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। চাঞ্চল্যকর ঘটনায় বিগত ১৫দিন যাবৎ নির্যাতনের শিকার অসহায় বিধবা ছন্দা রানী দাস মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছে ।

নির্যাতিতা অসহায় বিধবা ছন্দা রানী দাস’র দেবর একই এলাকার মৃত সুধীর চন্দ্র দাস’র পুত্র লিটন দাস বাদী হয়ে চাঞ্চল্যকর উপরোক্ত ঘটনায় ১৫মে মঙ্গলবার নরসিংদীর বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে এটি মামলা দায়ের করে। যার সি.আর বেলাব থানা মামলা নং ১৩৩/২০১৮। ধারা ৩৬৫/৩৮৪/৩০৭/৩২৬/৩২৫/৩২৩/৩৪ দন্ডবিধি। নরসিংদীর বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিজ্ঞ বিচারক অনামিকা চৌধুরী দায়েরকৃত মামলাটি সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে বেলাব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ প্রদান করেছেন। আদালতে দায়েরকৃত মামলার আসামীরা হচ্ছে বেলাব উপজেলার পোড়াদিয়া গ্রামের জয়নাল আবেদিন এর পুত্র ভুমিদস্যু কামরুল ইসলাম বিল্লাল, একই উপজেলার কাউয়ারটেকি গ্রামের আবু তাহের এর পুত্র মোঃ মাসুদ রানা, মৃত শহিদুল্লার পুত্র মোঃ মুকুল হোসেন, মনোহরদী উপজেলার বীরআহম্মদপুর গ্রামের মৃত দেবেন্দ্র পালের পুত্র পরিতোষ পালসহ অজ্ঞাতনামা ২/৩ জন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নির্যাতিতা অসহায় বিধবা ছন্দা রানী দাস ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালের ২০৩ নং ওয়ার্ডের ১৪ নং সিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।

অপরদিকে বেলাব থানা পুলিশ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপসহ আসামীদের গ্রেফতার করেনি বলে বাদী সূত্র জানিয়েছে। জাতীয় নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ফোরাম(জেএনএনপিএফ), নারী নির্যাতন প্রতিরোধ নেটওয়ার্ক (এনএনপিএন) বর্বোরিচিত নারী সহিংসতার ঘটনায় তীব্র নিন্দা, ক্ষোভ প্রকাশসহ অনতিবিলম্বে সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছে।