নরসিংদীতে পাসপোর্ট করতে এসে পুলিশের অভিযানে ৪ রোহিঙ্গা নারী গ্রেফতার

নরসিংদী সংবাদাতাঃ  নরসিংদীতে দালালদের হাত ধরে বাংলাদেশী পাসপোর্ট করতে এসে পুলিশের এক বিশেষ অভিযানে ৪ রোহিঙ্গা নারী গ্রেফতার হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৩০মে) গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নরসিংদী আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের অভ্যন্তর থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত রোহিঙ্গা নারীরা হচ্ছে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসা হামিদুল্লার কন্যা নূর বিবি (১৪), সলিমউল্লার কন্যা  আমেনা বেগম (২৩), মো: মামু সুলতানের কন্যা রাশিদা আক্তার (১৬), মোহাম্মদ এর কন্যা আনোয়ারা বেগম (১৭)।

স্থানীয় দালালের মাধ্যমে কক্সবাজার কুতুপালং ক্যাম্প থেকে পালিয়ে এসে নরসিংদী পাসপোর্ট কার্যালয়ের দালালদের মাধ্যমে পাসপোর্ট করার প্রক্রিয়া করছিল। এসময় সদর মডেল থানা পুলিশ সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছে নরসিংদী পাসপোর্ট অফিস থেকে তাদের গ্রেফতার করে। নরসিংদীর ঠিকানায় পাসপোর্ট প্রস্তুতকালে ৪ রোহীঙ্গা নারী, তাদের মধ্যে রাশিদা আক্তারের শিবপুর জয়নগর এলাকার ঠিকানায় ফাইল পুরোপুরিভাবে কাজ সম্পর্ন করে ফেলে পাসপোর্ট অফিসের কর্মকর্তারা।

বাকি ৩ জনের পাসপোর্টের প্রস্তুতের কাজ চলছিল। সংবাদ পেয়ে সদর মডেল থানা পুলিশ তাৎক্ষণিক পাসপোর্ট অফিসে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে। পুলিশ জানায়, ধারনা করা হচ্ছে নরসিংদী আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তাদের সহযোগীতায় রোহিঙ্গা নারীরা নরসিংদীর ঠিকানায় অবৈধ পাসপোর্ট করছিল। পুলিশের হাতে গ্রেপ্তারকৃত রোহিঙ্গা নারী নূর বিবি সাংবাদিকদের জানায়, বাংলাদেশি কিছু দালাল আছে তাদের কে এক হাজার টাকা দিলে ক্যাম্প থেকে চট্টগ্রাম বাসস্ট্যান্ডে এনে বাসে তোলে দেওয়া হয়।

সেখানে বাসের ড্রাইভারকে আরো এক হাজার টাকা দিয়ে দালালদের মাধ্যমে নরসিংদী নিয়ে আসে। ভালভাবে জীবনযাপন করতেই সেখান থেকে এখানে আসা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি বলেন, টাকা হলেই দালাল দিয়ে রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট নরসিংদীতে তৈরি হয়। নরসিংদী পাসপোর্ট অফিসে অফিস সহকারী সূজন হাওলাদার ও আরিফুল হক সুমনের সহযোগিতায় এসব কর্মকান্ড চলছে বলে জানা যায়। অপরদিকে নেপথ্যে থেকে এসবের সহযোগীতা করছেন নরসিংদী পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালক। মূলত টাকার বিনিময়ে এসকল অসাধু কর্মকর্তা ও দালাল চক্র অবৈধ পাসপোর্টের কাজ করে থাকে।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস নরসিংদীর উপ-পরিচালক জেবুন্নেছা সাংবাদিকদের সাথে কোন কথা বলতে রাজি হয়নি। তবে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন সদর মডেল থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক তাপস কুমার রায়।

সাংবাদিকদের তিনি জানায়, জেলা স্পেশাল ব্যাঞ্চ (ডিএসবি) নরসিংদী মডেল থানাকে ঘটনা অবগত করলে, পাসপোর্ট অফিসে যেয়ে ৪ জন রোহিঙ্গা নারীকে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে গ্রেফতারকৃতদের নরসিংদীর আদালতের নির্দেশে তাদেরকে একইদিন রাতের ট্রেনে প্রথমে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার কুতুপালং ক্যাম্পে প্রেরন করা হয়।