নরসিংদীতে বীর মুক্তিযোদ্ধার পুত্র আবুল হোসেন’র রহস্যজনক মৃত্যু

নরসিংদী প্রতিনিধি

নরসিংদীতে রায়পুরা উপজেলার চর-মরজালের বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আবুল হাশিম মিয়ার দ্বিতীয় পুত্র আবুল হোসেন (২৫)কে রহস্যজনকভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে এক চাঞ্চল্যকর সংবাদ পাওয়া গেছে। বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কেন্দ্রীয় যুব-কমান্ড জেলা শাখার সদস্য আবুল হোসেনকে পরিকল্পিত উপায়ে হত্যা করা হয়েছে বলে এলাকাবাসী জানায়।
নিহতের পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আবুল হাশিম মিয়া যাহার নিবন্ধন নং-ঃ ২৯৮৬।

স্থানীয় এলাকাবাসী ও নিহতের স্বজনরা জানান, রায়পুরা উপজেলার চর-মরজালের বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আবুল হাশিম মিয়ার দ্বিতীয় পুত্র আবুল হোসেন ও মরহুম মোঃ মহিউদ্দিনের পুত্র নিহতের আপন চাচাতো ভাই ফারুকের মাঝে দীর্ঘদিন যাবৎ জমি সংক্রান্ত বিরোধ চরমাকার ধারণ করে আসছিল। নিহতের চাচাতো ভাই ফারুক মিয়া সম্পূর্ণ বে-আইনীভাবে জোড়পূর্ব্বক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাশিম মিয়া’র পারিবারিক কবরস্থান দখল করে নিষ্ঠুরভাবে ওইস্থানে বসত-বাড়ি নির্মাণ ও পোল্ট্রি খামারের ব্যবসা চালিয়ে আস্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় বিগত ৪ মাস যাবৎ নিহত আবুল হোসেন তার পিতা মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাশিম মিয়ার জবরদখলকৃত পারিবারিক কবরস্থানসহ জমি ফিরে পাওয়ার আশায় স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও এলাকাবাসীর দ্বারে-দ্বারে সূ-বিচার প্রার্থনা করে আসছিল। জবরদখলদার ফারুক’র নিকট থেকে নিহত আবুল হোসেন পৈত্রিক সম্পদ ফিরে পেতে দ্বারে-দ্বারে ঘুরে সূ-বিচার চেয়ে ব্যর্থ হওয়ার এক পর্যায়ে উভয়ের মাঝে বিরোধিতা চরমাকার ধারণ করে।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, নিহত আবুল হোসেন জীবিকা নির্বাহে একই উপজেলার চরমরজাল গ্রামের জসিম উদ্দিনের পোল্ট্রী ফার্মে চাকুরী করে আসছিল। নিত্যদিনের ন্যায় পোল্ট্রী ফার্মের কাজ-কর্ম শেষে নিহত আবুল হোসেন ফার্মের অভ্যন্তরে রাত্রি-যাপনে ঘুমিয়ে পড়ে। ১৯ জানুয়ারী বৃহস্পতিবার সকালে পোল্ট্রী ফার্মের মালিক জসিম উদ্দিন ফার্ম অভ্যন্তরে যেয়ে কর্মচারী নিহত আবুল হোসেনকে মৃত অবস্থায় মাটিতে পড়ে থাকতে দেখে। এ সময় পোল্ট্রী ফার্মের মালিক কর্মচারী আবুল হোসেন নিহতের ঘটনাটি রাস্তায় চলাচলকারী পথচারীদের জানালে রহস্যজনক মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে তারা লাশটি দেখতে ভীর জমায়। এরপর রহস্যজনক মৃত্যুর সংবাদটি লোকমুখে জানাজানি হলে এলাকার লোকজনসহ নিহতের আত্মীয়-স্বজনরা ঘটনাটি জানতে পারে। পরবর্তীতে নিহতের আত্মীয়-স্বজনরা রহস্যজনক মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছলে তার মৃত্যুটি স্বাভাবিক নয় বলে ধারণা করেন।
নিহতের স্বজনরা রহস্যজনক ঘটনাটি রায়পুরা থানা পুলিশকে অবহিত করলে থানা-পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত শেষে তার লাশটি স্বজনদের নিকট হস্তান্তর করে। এ রহস্যজনক ঘটনায় রায়পুরা থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রুজু করা হয়।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাশিম মিয়ার পারিবারিক কবরস্থানে নিহত আবুল হোসেনের লাশ দাফনে জবরদখলদার ফারুকসহ তার সহযোগীরা বাধা প্রদান করলে তার নিজ গ্রাম চর-মরজালে সমাধি করতে না পেরে বাধ্য হয়ে শিবপুর উপজেলার আইয়ুবপুর ইউনিয়নের বংশিরদিয়ায় তার নানার বাড়ির পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করা হয়। রায়পুরা থানা পুলিশ’র এস,আই, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মানিক সাহা রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনাটি নিশ্চিত করে বলেন, ময়না তদন্ত রিপোর্ট হাতে পৌঁছলেই মৃত্যুর প্রকৃত রহস্য উন্মোচিত হবে এবং আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে নিহতের স্বজনদের আশ্বস্ত করেন।
নিহত আবুল হোসেনের আত্মীয়-স্বজন ও এলাকাবাসী রহস্যজনক মৃত্যুর প্রকৃত কারণ উদঘাটন সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য স্থানীয় প্রশাসনসহ আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার নিকট দাবী জানিয়েছেন।