বাবার পর চলে গেল শিশুকন্যাও

বিডিসংবাদ অনলাইন ডেস্কঃ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে গ্যাস সিলিন্ডারের লিকেজ থেকে বিস্ফোরণে একই পরিবারের চারজন দগ্ধ হয়েছে। এদের মধ্যে শিশু লাবনী আক্তার (১২) আজ রোববার মারা গেছে।

এর আগে গত রোববার (২৫ ডিসেম্বর) মারা গেছেন শিশুটির বাবা জাহিদ হোসেন (৪০)।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভোর সাড়ে ৫টার দিকে শিশুটি মারা যায়।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এস এম আইউব হোসেন জানান, রূপগঞ্জের ভুলতা এলাকায় গ্যাস সিলিন্ডারের লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ হয়। এতে একই পরিবারের শিশুসহ চারজন দগ্ধ হয়ে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্নে ভর্তি হন। এদের মধ্যে জাহিদ হোসেন নামের একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ২৫ ডিসেম্বর মারা যান। আজ ভোরে জাহিদ হোসেনের মেয়ে লাবনী নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। এই নিয়ে এ ঘটনায় দু’জন মারা গেলেন।

তিনি বলেন, লাবনী আক্তারের শরীরের ২২ শতাংশ দগ্ধ ছিল। লাবনীর মা রুমা আক্তার (২৮) ও ভাই ইয়াছিন (৮) এখনো চিকিৎসাধীন। রুমার শরীরে ২৩ শতাংশ এবং ইয়াসিনের ১০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পেশাগত কারণে কয়েকমাস ধরে সপরিবারে উপজেলার ডহরগাঁও এলাকার জামাল উদ্দিনের বাড়িতে বসবাস করে আসছেন জাহিদ। তিনি স্থানীয় ফকির ফ্যাশন টেক্সটাইল মিলে চাকরি করতেন। ১৭ ডিসেম্বর সকাল ৭টার দিকে জাহিদের স্ত্রী রুমা রান্নাঘরে গ্যাসের চুলা চালানোর চেষ্টা করলে বিস্ফোরণ হয়ে আগুন লেগে যায়। এতে জাহিদসহ পরিবারের সদস্যরা অগ্নিদগ্ধ হন। তাদের চিৎকারে স্থানীয়রা উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করান।

বিডিসংবাদ/এএইচএস