রাজধানীতে বৈদেশিক মুদ্রাসহ ১৪ জন গ্রেফতার

বিডিসংবাদ অনলাইন ডেস্কঃ

রাজধানীতে অবৈধ মানি এক্সচেঞ্জ অফিসসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে পৃথক অভিযান চালিয়ে বৈদেশিক মুদ্রাসহ ১৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।
মঙ্গলবার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত গুলশান, মোহাম্মদপুর ও উত্তরার আশকোনা এলাকায় পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।
গ্রেফতারের সময় তাদের কাছ থেকে এক কোটি ১১ লাখ ১৯ হাজার ৮২৬ টাকা সমমূল্যের ১৯টি দেশের বৈদেশিক মুদ্রাসহ মোট এক কোটি ৯৯ লাখ ৬১ হাজার ৩৭৬ টাকা জব্দ করা হয়।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন, আবু তালহা ওরফে তাহারত ইসলাম তোহা (৩২), আছাদুল শেখ (৩২), হাছান মোল্যা (১৯), আব্দুল কুদ্দুস (২৪), হাসনাত এ চৌধুরী (৪৬), শামসুল হুদা চৌধুরী ওরফে রিপন (৪০), সুমন মিয়া (৩০), তপন কুমার দাস (৪৫), আব্দুল কুদ্দুস (৩২), কামরুজ্জামান রাসেল (৩৭), মনিরুজ্জামান (৪০), নেওয়াজ বিশ্বাস, আবুল হাসনাত (৪০) ও শাহজাহান সরকার (৪৫)।
বুধবার দুপুরে রাজধানীর মালিবাগ সিআইডি কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান সিআইডি প্রধান অতিরিক্ত আইজিপি মোহাম্মদ আলী মিয়া। সিআইডির অন্যান্য কর্মকর্তারা এসময় উপস্থিত ছিলেন।
অতিরিক্ত আইজিপি জানান, বাংলাদেশ ব্যাংকের বিএফআইইউ টিমের তথ্য ও সহযোগিতায় রাজধানীর গুলশান-১, রিংরোড, মোহাম্মদপুর, উত্তরার আশকোনা, এবি মার্কেট, চায়না মার্কেটে একযোগে পাঁচজন বিশেষ পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে অভিযান চালানো হয়। এই পাঁচটি প্রতিষ্ঠানই বাংলাদেশ ব্যাংকের তালিকায় অবৈধ।
তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠান গুলো হচ্ছে, গুলশানের জে এম সি এইচ প্রাইভেট লিমিটেড, মোহাম্মদপুরের টোকিও স্কয়ারের আলম আ্যন্ড ব্রাদার্স এবং উত্তরার আশকোনা মুক্তিযোদ্ধা মার্কেটের তৈমুর মানি এক্সচেঞ্জ। বাকি দু’টি ফেরারি প্রতিষ্ঠান।
সিআইডি প্রধান বলেন, প্রতিষ্ঠানগুলো প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৭০ থেকে ৭৫ লাখ টাকা সমমূল্যের বিদেশি মুদ্রা অবৈধভাবে কেনাবেচা করে আসছিল। সারা দেশে আরও এক হাজারের বেশি অবৈধ মানি এক্সচেঞ্জ প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এদের কার্যক্রম সম্পূর্ণ অবৈধ।
সাধারণ মানুষের কাছে অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, যখন কোনো কাজে, চিকিৎসা করতে বিদেশে যাচ্ছেন, তার আগে কিছু প্রসিডিউর আছে। ভিসা পাওয়ার পর বাংলাদেশের যেকোনো ব্যাংকে ভিসা দেখালে বিদেশি মুদ্রা পাওয়া যাবে। সংশ্লিষ্ট ব্যাংক তা দিতে বাধ্য। তাহলে কেন তারা অবৈধভাবে ১শ’ টাকার ডলার ১১৫ বা ১২০ টাকায় কিনবেন? এটি অন্যায় ও অবৈধ।
সিআইডি বলছে, প্রাতিষ্ঠানিক কিংবা অপ্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোয় পরিচালিত অবৈধভাবে মানি এক্সচেঞ্জ প্রতিষ্ঠানের নেপথ্যে যারাই থাক তাদের খুঁজে বের করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দেশে বৈধ মানি এক্সচেঞ্জ প্রতিষ্ঠান ২৩৫টি। এর বাইরে অনুমতি ছাড়াই অবৈধভাবে ব্যবসা করছে আরও হাজারের বেশি মানি এক্সচেঞ্জ। এর বাইরে আরও অসংখ্য প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা ফোনের মাধ্যমে ঘুরে ঘুরে দেশি-বিদেশি মুদ্রা অবৈধভাবে বেচাকেনা করছে।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘অবৈধ মানি এক্সচেঞ্জের বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক কাজ করছে। দেশের সচেতন নাগরিক হিসেবে আমার মতে কোনো অবৈধ পথ বেছে নেওয়া উচিত নয়। বাংলাদেশ ব্যাংক বা অন্য যে কোনো ব্যাংকের কোনো কর্মকর্তা যদি হুন্ডি কিংবা অবৈধ মানি এক্সচেঞ্জের সঙ্গে জড়ানোর তথ্য মেলে, তাকেও ছাড় দেওয়া হবে না।’

বিডিসংবাদ/এএইচএস

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here