শিক্ষার্থীদের হাত ধরেই আগামী দিনের স্বপ্নের স্মার্ট বাংলাদেশে রুপান্তিরিত হবেঃ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সচিব

এইচ আর লিডারশিপ ফর স্মার্ট বাংলাদেশ ২০৪১; ড্রাইভিং এভার চেঞ্জিং বিজনেস থ্রো ইনোভেশন" প্রতিপাদ্য নিয়ে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি আয়োজিত "দ্য ন্যাশনাল এইচ.আর সামিট ২০২৩ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন ইনফরমেশন এন্ড কমিউনিকেশন বিভাগের সচিব মোঃ শামসুল আরেফিন।

ইনফরমেশন এন্ড কমিউনিকেশন বিভাগের সচিব মোঃ শামসুল আরেফিন বলেছেন, শিক্ষার্থীদের হাত ধরেই আজকের ডিজিটাল বাংলাদেশ আগামী দিনে প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নের স্মার্ট বাংলাদেশে রুপান্তিরিত হবে আার এ কাজের কান্ডারী হবে শিক্ষার্থীরা। তাই শিক্ষার্থীদের অগ্রসরমান বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে যুগোপযোগী তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষায় ও হার্ডওয়ার শিল্পে দক্ষ জনশক্তিতে রুপান্তিরিত করতে হবে।

তিনি বলেন, বিশ্বে সফটওয়ার ও হার্ডওয়ার উভয় শিল্পেই দক্ষ জনশক্তির যথেস্ট চাহিদা রয়েছে এবং বিশ্বব্যাপী এর বিশাল বাজার রয়েছে। হার্ডওয়ার শিল্পের ট্রিলিয়ন মাকেটের বিশ্ববাজারের সামান্য অংশ ও বাংলাদেশ ধরতে পারলে দেশের অর্থনীতি অনেক দূর এগিয়ে যাবে। তাই সরকার সফটওয়ারের পাশাপাশি হার্ডওয়ার শিল্পকেও সমান গুরুত্ব দিয়ে আসছে। তিনি আজ (২ সেপ্টেম্বর রোজ শনিবার) ড্যাফোডিল স্মার্ট সিটি, বিরুলিয়া, সাভার, ঢাকায় ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি আয়োজিত “দ্য ন্যাশনাল এইচ.আর সামিট ২০২৩ এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, আগামী পাঁচ বছরে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, ইন্টারনেট অব থিংকিং এর মত বিষয় গুলি আলাদিনের দৈত্যের রুপ ধারন করলেও ডাটা ব্যাংকিং, সাইবার সিকিউরিটি, সফটওয়ার ডেভেলাপমেন্ট, ক্লাউড কম্পিউটিয়, ুসস্টেম এনালিস্ট, টেকনোলজিক্যাল প্রোগ্রাম ম্যনেজারের মত বিষয়গুলো মানুষের দখলেই থেকে যাবে। ক্ষুদ্র রাস্ট্রের বৃহৎ জনগোষ্ঠীর এ দেশে তিনি শিক্ষার্থীদের সরকারি চাকরি পাওয়ার বা করার মনমানসিকতা থেকে বেরিয়ে এসে এন্ট্রপ্রেনিয়র বা ইনোভেটর হওয়ার আহ্বান জানান।


এবারের সামিটের মূল প্রতিপাদ্য হলো “এইচ আর লিডারশিপ ফর স্মার্ট বাংলাদেশ ২০৪১; ড্রাইভিং এভার চেঞ্জিং বিজনেস থ্রো ইনোভেশন”। এ.টু.আই এর সহযোগিতায় ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এই প্রোগ্রামটি আয়োজন করে। আয়োজনের সার্বিক সহযোগীতায় ছিল ডি.সি.সি.আই(ঢাকা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি) এবং বি.এস.এইচ.আর.এম (বাংলাদেশ সোসাইটি অব হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজম্যান্ট)।


এই ইভেন্টটি সকলের জন্য একটি উন্মুক্ত ও কার্যকরী আলোচনার সুযোগ তৈরী করে দিবে। নতুন নতুন আইডিয়া আদান-প্রদানের মাধ্যমে বাংলাদেশের ২০৪১ সালের দুরদর্শী পরিকল্পনা প্রণয়নে যা একটি আধুনিক আকার প্রদান করবে। মানব সম্পদ বিভাগে নতুন, দক্ষ ও যোগ্য নেতৃত্ব তৈরীর প্রতি মনোনিবেশ করে ব্যাবসায়িক পরিকল্পনা প্রণয়ণের মাধ্যমে এই ইভেন্ট বৈশ্বিক চাহিদার সাথে সামঞ্জস্যতা বজায় রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

ইনফরমেশন এন্ড কমিউনিকেশন বিভাগের সচিব মোঃ শামসুল আরেফিন উদ্বোাধনী সেশনের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় এর টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বিষয়ক অতিরিক্ত সচিব জনাব মোঃ মনিরুল ইসলাম, বাংলাদেশ সোসাইটি ফর হিউম্যান রিসোর্সেস ম্যানেজমেন্ট এর সভাপতি রোটারিয়ান মোঃ মাশেকুর রহমান, এসপায়ার টু ইনোভেট ( ধ২র) এর পলিসি এডভাইজার অনির চৌধুরী, ড্যাফোডিল পরিবারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ নুরুজ্জামান ও সিটিও ফোরামের সভাপতি তপন কান্তি সরকার । অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. এম লুৎফর রহমান। অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন ইউনিলিভার বাংলাদেশ লিমিটেড এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব মোহাম্মদ জাভেদ আকতার, ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো (বি.এ.টি) বাংলাদেশ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক শেহজাদ মুনিম, ও ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির বাণিজ্য ও উদ্যোক্তাবৃত্তি অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মোঃ মাসুম ইকবাল।

পুরো প্রোগ্রামটিকে চাকরির ক্যাটাগরী অনুযায়ী ৫টি ভিন্ন ভিন্ন সেশনে ভাগ করা হয়েছে। ইউনিলিভার বাংলাদেশ লিমিটেড, বি.এ.টি বাংলাদেশ, ইউনিক গ্রুপ, সি.টি.ও ফোরাম বাংলাদেশ, বিডি জবস, ডিজিটাল সিকিউরিটি এজেন্সি, নগদ, ক্রিয়েটিভ বিজনেস গ্রুপ, বাংলা মেঘ লিমিটেড এবং সিকিউর ডাটা লিমিটেড, পি.টি.ডি.সি.এ, আকিজ বশির গ্রুপ, রেডিয়েন্ট ফার্মাসিউটিকালস লিমিটেড, প্রাণ, এবি ব্যাংক, আগোরা, মধু সিটি, টি.কে গ্রুপ, বিটপি গ্রুপ, হামিম গ্রুপ, শেভরণ টেক্সটাইল এন্ড ট্রেডিং লিমিটেড, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ সহ শীর্ষ ৫০টি কোম্পানি এই ন্যাশনাল সামিট ২০২৩ এ অংশগ্রহণ করছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here