সন্ত্রাসী অর্থায়ন মনিটরের ‘ধূসর তালিকা’ থেকে বেরিয়ে এসেছে পাকিস্তান

বিডিসংবাদ অনলাইন ডেস্কঃ

একটি বৈশ্বিক মানি লন্ডারিং এবং সন্ত্রাসবাদে অর্থায়নের নজরদারি সংস্থা শুক্রবার অপরাধ মোকাবেলায় ‘কৌশলগত ঘাটতি’ মোকাবেলার জন্য চার বছর পর ‘বর্ধিত পর্যবেক্ষণ’ প্রক্রিয়ার অধীনে দেশগুলোর তালিকা থেকে পাকিস্তানকে সরিয়ে এনেছে।

ফিন্যান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্সের (এফএটিএফ) সভাপতি প্যারিসে তার সদর দফতরে এক বৈঠকের পর এই ঘোষণা দেন, যা কিনা দক্ষিণ এশীয় দেশটির সুনাম বৃদ্ধি করেছে যে দেশটি এই বছরের বিপর্যয়কর বন্যার দ্বারা বিধ্বস্ত একটি অস্থির অর্থনীতি মোকাবেলা করতে সংগ্রাম করছে এবং ব্যালেন্স অফ পেমেন্ট এর সঙ্কটে রয়েছে।

ফ্রান্সের রাজধানীতে সংবাদদাতাদের টি. রাজা কুমার বলেছেন, পাকিস্তান সন্ত্রাসবাদে অর্থায়নের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য তার কাঠামোর কার্যকারিতা জোরদার করার লক্ষ্যে উল্লেখযোগ্য উন্নতি করেছে। সেইসাথে সম্পদ বাজেয়াপ্তকরণের ফলাফল এবং অর্থ পাচার ঠেকাতে উন্নতি করেছে।

কুমার বলেছেন, সুতরাং, সম্মিলিতভাবে এই সবের কারণে, এফএটিএফ তার সম্মিলিত বৈঠকে পাকিস্তানকে বর্ধিত পর্যবেক্ষণ, তথাকথিত ধূসর তালিকা থেকে সরিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

২০১৮ সালে কৌশলগত ঘাটতিগুলোর কারণে পাকিস্তানকে এই তালিকায় যুক্ত করা হয়েছিল এফএটিএফ দেশের অর্থ পাচার বিরোধী এবং সন্ত্রাসবাদবিরোধী অর্থায়ন ব্যবস্থায় চিহ্নিত করেছিল, ইসলামাবাদকে শক্তিশালী করার জন্য একটি বিস্তৃত সংস্কার কর্মসূচি দিয়েছিল।

কুমার একটি পারস্পরিক সম্মত কর্ম পরিকল্পনা সফলভাবে সম্পন্ন করার জন্য পাকিস্তানের প্রশংসা করেছেন, আরো বলেছেন, সংস্কারগুলো টিকিয়ে রাখার জন্য পাকিস্তানের বড় রকমের প্রতিশ্রুতি এবং ক্ষমতা রয়েছে। তিনি বলেন যে এটি ‘দেশের এবং প্রকৃতপক্ষে অঞ্চলের স্থিতিশীলতা ও নিরাপত্তার জন্য ভালো।

গ্লোবাল মনিটরের শুক্রবারের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরিফ।
সূত্র : ভয়েস অফ আমেরিকা

বিডিসংবাদ/এএইচএস