সেনানিবাসে মাতলামি করলে ২০ হাজার টাকা জরিমানা

সেনানিবাস এলাকায় মাতলামি, ভিক্ষাবৃত্তি ও মলমূত্র ত্যাগ করলে ২০ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রেখে সেনানিবাস আইনের সংশোধনী অনুমোদন করা হয়েছে।

সোমবার দুপুরে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় প্রস্তাবটি উপস্থাপন করেছিল।

সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদের সম্মেলন কক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. শফিউল আলম সাংবাদিকদের এ বিষয়ে ব্রিফ করেন।

তিনি বলেন, ১৯২৪ সালের আইন দ্বারা সেনানিবাস ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড পরিচালিত হয়ে আসছে। দীর্ঘ ৯০ বছর পর আইনটি হালনাগাদ করা হচ্ছে। আইনের ৪৩টি ধারা সংশোধন করে সাজার মেয়াদ বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে।

শফিউল আলম বলেন, ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের অধীন এলাকায় ট্রাফিক আইন ভাঙলে আগে ৫০ টাকা জরিমানা হতো। সংশোধনীতে তা বাড়িয়ে দুই থেকে পাঁচ হাজার টাকা করা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, এ আইনে সেনানিবাস এলাকায় কেউ মাতলামি, ভিক্ষাবৃত্তি ও মলমূত্র ত্যাগ করলে ২০ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে।

এছাড়া ওই এলাকায় স্থাপনা নির্মাণকাজে বিলম্ব করলে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

এ ছাড়াও কেউ যদি খোলা মাংস বহন করে, তবে শাস্তি হিসেবে তার ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের কথা বলা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব আরও জানান, আগের আইন অনুযায়ী সেনানিবাস এলাকায় কেউ আতশবাজি করলে ৫০ টাকা জরিমানা করা হতো। বর্তমানে তা তিন হাজার টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

তিনি জানান, বৈঠকে বাংলাদেশ ও সানমেরিনোর সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের লক্ষ্যে একটি চুক্তির খসড়া অনুমোদন করা হয়েছে।