১৩৩ জনের মৃত্যু : গুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে ইন্দোনেশিয়ার সেই স্টেডিয়াম

বিডিসংবাদ অনলাইন ডেস্কঃ

ইন্দোনেশিয়ার যে ফুটবল স্টেডিয়ামে পদদলনে ১৩৩ জনের প্রাণহানি ঘটেছে, সেটি ধ্বংস করে আবারো নতুন করে তৈরি করা হবে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো। মঙ্গলবার রাজধানী জাকার্তায় ফিফার প্রেসিডেন্ট জিয়ান্নি ইনফান্তিনোর সাথে বৈঠকের পর এই ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

ফিফার প্রেসিডেন্ট দেশটিতে ফুটবল খেলার সংস্কার এবং রূপান্তরে সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন বলেও জানিয়েছেন উইদোদো। দুই সপ্তাহ আগে ইন্দোনেশিয়ায় ফুটবল স্টেডিয়ামে পদদলন এবং সংঘর্ষে ১৩৩ জনের প্রাণহানি ঘটে। মর্মান্তিক এই ঘটনার পর মঙ্গলবার ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদোর সাথে বৈঠক করেছেন ফিফা প্রেসিডেন্ট।

দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার এই দেশটিতে এক বছর পর অনুর্ধ্ব-২০ ফুটবল বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। গত ১ অক্টোবর পূর্ব জাভার মালাং শহরের স্টেডিয়ামে ফুটবল ম্যাচ শেষে পদদলিত হওয়ার ঘটনায় নিহতদের মধ্যে ৪০ জনের বেশি শিশুও রয়েছে। ফিফা প্রেসিডেন্ট এই ঘটনাকে ‘ফুটবলের জন্য অন্ধকারাচ্ছন্ন দিনগুলোর একটি’ বলে অভিহিত করেছেন।

আরেমা এফসি এবং প্রতিপক্ষ পার্সেবায়া সুরাবায়ার মধ্যকার একটি লিগ ম্যাচ শেষ হওয়ার সাথে সাথে উভয় দলের সমর্থকরা মাঠে প্রবেশ করেন। পরে পুলিশ টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ ও লাঠিচার্জ করে। এতে আতঙ্কিত লোকজন দ্বিগ্বিদিক ছুটাছুটি করতে গিয়ে পদদলিত হন। স্টেডিয়াম থেকে যারা কোনো রকমে বেরিয়ে আসতে পেরেছিলেন, তারা দ্বিতীয় দফায় স্টেডিয়ামের বাইরে পুলিশের লাঠিপেটার মুখোমুখি হন।

জাকার্তায় সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে জোকো উইদোদো বলেছেন, আমরা ফিফার নিয়মনীতি মেনে মালাংয়ের কাঞ্জুরুহান স্টেডিয়াম ভেঙে ফেলব এবং পুনর্নির্মাণ করব।

তিনি বলেন, নতুন নির্মিত স্টেডিয়ামে খেলোয়াড় এবং সমর্থক- উভয়ের নিরাপত্তা নিশ্চিতে যথাযথ ব্যবস্থা থাকবে। উইদোদো পাশে দাঁড়ানো ইনফান্তিনো বলেন, আমরা এই দেশে ফুটবলের সংস্কার ও রূপান্তর করব।

দেশটির প্রধান নিরাপত্তা মন্ত্রী মাহফুদ এমডি ইন্সটাগ্রামে দেয়া এক পোস্টে বলেন, ধারণক্ষমতার চেয়ে স্টেডিয়ামে দর্শকের উপস্থিতি ছিল অনেক বেশি। তিনি বলেন, স্টেডিয়ামে ৩৮ হাজার দর্শকের ধারণক্ষমতা থাকলেও টিকিট বিক্রি করা হয়েছিল ৪২ হাজার।

দুর্ঘটনার পরপরই প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো দেশটির ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনকে ইন্দোনেশিয়ার শীর্ষ লীগ বিআরআই লিগা-১ -এর সব ম্যাচ স্থগিতের রাখার নির্দেশ দেন। ফুটবল ম্যাচগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিতের তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত এই লীগ মাঠে গড়াবে না বলে জানান তিনি।

সূত্র : আল-জাজিরা ও এএফপি

বিডিসংবাদ/এএইচএস