গাইবান্ধায় নিখোঁজ ৪ নেতার সন্ধান দাবিতে বিক্ষোভ

৯ দিন ধরে নিখোঁজ গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও যুবদলের চার নেতার সন্ধান দাবিতে বিশাল মানববন্ধন-বিক্ষোভ ও কর্মসূচী পালন করেছে বিক্ষুদ্ধ জনতা।

মঙ্গলবার দুপুরে সাদুল্যাপুর উপজেলার শহরের পাবলিক লাইব্রেরী এ- ক্লাব চত্বরে চার নেতা উদ্ধার দাবিতে সর্বদলীয় ব্যানারে সাদুল্যাপুর-গাইবান্ধা পাকা সড়কের দু’ধারে মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়।

মানববন্ধনে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মী, বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনের নেতাকর্মী, ব্যবসায়ী, নিখোঁজদের স্বজনসহ সর্বস্তরের হাজার হাজার নারী-পুরুষ অংশ নেয়।

বক্তারা অভিযোগ করেন, গত ৯ দিন ধরে চার নেতা নিখোঁজ হলেও তাদের সন্ধান ও উদ্ধারে কোন তৎপরতা নেই পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের। অবিলম্বে তাদের সন্ধান দেওয়ার জন্য পুলিশসহ প্রশাসনের নিকট দাবি জানানো হয়। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পুলিশ-প্রশাসন তাদের সন্ধান দিতে ব্যর্থ হলে রাজপথ অবরোধসহ বৃহত্তর আন্দোলনের ঘোষণা দেওয়া হয়।
মানববন্ধন শেষে বিক্ষুদ্ধ জনতা একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে থানার সামনের পাকা সড়কে অবস্থান নিয়ে অবরোধ করে রাখে। এসময় সড়কের দু’ধারে সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে। পরে থানার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা (তদন্ত) মো. বোরহান উদ্দিন আশ্বাসে থানা ঘেরাও কর্মসূচি তুলে নেয় বিক্ষুদ্ধ জনতা।

এদিকে, চার নেতার সন্ধান ও তাদের অবিলম্বে মুক্তির দাবিতে প্রিন্স মুক্তি পরিষেদের ডাকে সাদুল্যাপুরের নলডাঙ্গায় সকাল থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত হরতাল পালিত হয়েছে। হরতাল চলাকালে বিক্ষুদ্ধ জনতা বিক্ষোভ করে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা লালমনিহারগামী লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনটি নলডাঙ্গা রেল ষ্টেশনে ৩০ মিনিট আটকিয়ে রাখে। এছাড়া হরতাল চলাকালে সকল প্রকার দোকানপাট ও সড়কে যানচলাচল বন্ধ থাকে।

প্রসঙ্গত, গত সোমবার (৯ জানুয়ারি) রাত ১১টার দিকে সাদুল্যাপুর উপজেলার ৩নং দামোদরপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মনোয়ারুল হাসান জিম ম-ল ও দামোদরপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাদেকুল ইসলাম সাদেককে সঙ্গে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে নলডাঙ্গা যাচ্ছিলেন। এরপর থেকে নিখোঁজ হন তারা। পরদিন মঙ্গলবার সকাল ১১টার দিকে রেলগেট ও কাচারিবাজার এলাকা থেকে নলডাঙ্গা ইউনিয়ন আ.লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাইদুল ইসলাম প্রিন্স ও নলডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবদলের সহ-সাধারণ সম্পাদক শফিউল ইসলাম শাপলাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয় দিয়ে মোটরসাইকেলসহ তাদের তুলে নিয়ে যায়।