রামগড়-ফটিকছড়ি সীমান্তে জরুরি সতর্কতা জারি

ভারতের দক্ষিণ ত্রিপুরার সাব্রুম মহকুমার সীমান্তবর্তী গ্রামে সেদেশের সীমান্ত-রক্ষীবাহিনী বিএসএফের গুলিতে এক নারীসহ তিনজন ভারতীয় ত্রিপুরা উপজাতি নিহত হওয়ার ঘটনায় রামগড় ও ফটিকছড়ি সীমান্তে বিশেষ সর্তক অবস্থা জারি করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবি। ওই ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয়েছে আরও দুজন।

শুক্রবার বিকালে হতাহতের এ ঘটনা ঘটে। রামগড়স্থ ৪৩ বিজিবির অধিনায়ক লে.কর্নেল এম. জাহিদুর রশীদ খবরটি নিশ্চিত করে বলেন, বাংলাদেশ সীমান্ত থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে দক্ষিণ ত্রিপুরার সাব্রুম মহকুমার হারবাতলী এলাকায় স্থানীয় গ্রামবাসীদের সাথে সংঘর্ষের এক পর্যায়ে বিএসএফ গুলি চালায়। এতে হতাহতের ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, রামগড়স্থ বিজিবির ৪৩ ব্যাটালিয়নের আওতাধীন ফটিকছড়ির পানুয়াছড়া বিওপির বিপরীতে ভারতের সাব্রুমের সীমান্তবর্তী হারবাতলীর উপজাতীয় স্বশাসিত(এডিসি) চিতাবাড়ি এলাকায় শুক্রবার বিকাল ৫টার দিকে গ্রামবাসীর উপর বিএসএফ গুলি চালায়। এতে ঘটনাস্থলেই একজন মহিলাসহ তিনজন ভারতীয় ত্রিপুরা উপজাতি মারা যায়।

আহতদের সাব্রুম মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সাব্রুমের এক সাংবাদিক জানান,  উপজাতি জুমচাষিরা গরু নিয়ে বাড়ি ফেরার সময় সাব্রুমের ৩১ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের ভাঙ্গামুড়া ক্যাম্পের বিএসএফ গরু পাচারকারী সন্দেহে তাদের উপর গুলি বর্ষণ করে। এতে তিনজন নিহত ও দুজন আহত হন। এ ঘটনায় সেখানে উপজাতীয়দের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

বিএসএফের গুলিতে হতাহতের ঘটনার পর রামগড় ও ফটিকছড়ি সীমান্তে কড়া সর্তকতাজারি করেছে বিজিবি। ৪৩ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে.কর্নেল এম. জাহিদুর রশীদ সর্তকতাজারি কথা স্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় ত্রিপুরার ঐ এলাকায় উত্তেজনা পরিস্থিতি বিরাজ করছে। কেউ যাতে সীমান্ত অতিক্রম করে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করতে না পারে সেজন্যই টহলবৃদ্ধিসহ সীমান্তজুড়ে নজরদারি বৃদ্ধি করা হয়েছে।